logo

orangebd logo
দুর্নীতিবাজদের বাঁচাতে শহীদরা জীবন দেননি
ড. কামাল
নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

দেশের সঙ্গে যারা দুর্নীতি করছে তাদের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বিশিষ্ট আইনজীবী ও সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেন বলেছেন, শহীদদের মাটি কোনদিন অন্যায়-অত্যাচার মেনে নেবে না। তিনি বলেন, দুর্নীতি, লুটপাটকারী ও পাচারকারীদের বাঁচাতে শহীদরা নিজেদের জীবন দেননি। দেশের গুণগত পরিবর্তনের জন্য শহীদরা জীবন দিয়েছেন। অত্যাচার-নির্যাতনমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি। গতকাল বেইলি রোডের নিজ বাসভবনের সামনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন বিশিষ্ট আইনজীবী ও সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেন। গতকাল ৮১তে পা রাখলেন ড. কামাল। এ উপলক্ষে তার দল গণফোরামের উদ্যোগে আয়োজিত হয় ওই অনুষ্ঠানের। সকালে নেতাকর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছায় ৮০তম জন্মদিন পালন করেন। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন ড. কামাল হোসেন। এ সময় তার পাশে ছিলেন বিশিষ্ট মানবাধিকার নেত্রী এবং তার স্ত্রী ড. হামিদা হোসেন। সভায় নেতাদের মধ্যে উপস্থিত গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য মফিজুল ইসলাম খান কামাল, অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরীসহ আওম শফিক উল্লাহ, মোশতাক আহমেদ, ফজলুল কবির কাওসার প্রমুখ।

ড. কামাল হোসেন বলেন, শহীদরা লুটপাটকারীদের রক্ষার জন্য শহীদ হননি। পাচারকারীদের বাঁচাতে রক্ত দেননি। জনগণকে এটা বোঝাতে হবে, দেশের গুণগত পরিবর্তনের জন্য শহীদ হয়েছেন। নিজের আয় দিয়ে এ দেশের মানুষ সুখেই থাকবে। হাসপাতালে ভালো চিকিৎসাও পাবে তারা। সভ্য রাষ্ট্র করতে যা লাগবে তার ঘাটতি হবে না। প্রবীণ এই রাজনীতিবিদ বলেন, নিরাশ হওয়ার কোন কারণ নেই। দেশে ঘুষ-দুর্নীতি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ নিতে দেয়া হবে না। দুর্নীতিবাজদের সতর্ক করে ড. কামাল বলেন, তোমরা যারা দুর্নীতি করছ শুনে রাখ বাংলাদেশের মাটি এটা সহ্য করবে না। দেখ তোমাদের পূর্বপুরুষদের কি হয়েছে, রাগববোয়াল যারা দুর্নীতি করেছে তারা কি ভালো আছে? তাদের কি পরিণতি হয়েছে? এ সময় তিনি সবাইকে আশ্বস্ত করে বলেন, সবাই এক হলে অবশ্যই আমরা এদেশকে দুর্নীতিমুক্ত করতে পারব। সন্ত্রাসমুক্ত করতে পারব।

জন্মদিনের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে ড. কামাল বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাকে রাজনীতিতে এনেছেন। আমি আসতে চায়নি। তিনি আমাকে দলে যোগ দিতে বললে রাজি হয়নি, বলেছিলাম আমি তো আপনার কর্মী হিসেবে কাজ করতেই পারি, দলে যোগ দেয়ার কি আছে? উত্তরে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, একজন সফল উকিল ব্যারিস্টার হয়ে টাকা কামাই করতে পারবে, কিন্তু মানুষের মন পাবে না। রাজনীতি হলো মানুষের সেবা করা। ঝুঁকি নিয়ে তাদের জন্য লড়াই করা। সত্যিকারের রাজনীতিতে এলে মানুষের যে ভালোবাসা পাওয়া যায় এর তুলনা অন্য কিছুতে নেই। মানুষের সত্যিকারের ভালোবাসা পেতে হলে রাজনীতিতে আসতে হবে। সত্যিই আমি আজ দেখছি বঙ্গবন্ধুর কথাই ঠিক, এটা একশত ভাগ সত্যিই। এখন আজ ষোল আনাই প্রমাণ পাচ্ছি। আজ যে ভালোবাসা পাচ্ছি তা এক হাজার কোটি টাকা দিয়েও কেনা যায় না। রাজনীতি না করলে জনগণের জন্য সত্যিকারার্থেই কিছু করা যায় না।

দেশের উন্নয়নের কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, দেশের ব্যাপক উন্নয়নের পেছনে গার্মেন্টের শ্রমিক, মেয়েরা কাজ করছে। প্রবাসী বাংলাদেশিরা করছে, রেমিটেন্স পাঠাচ্ছে। আর জনগণের এই টাকা কতিপয় লোক দেশের বাইরে পাচার করছে। কারা এই পাচারকারী? যারা পাচার করছে তাদের নানাভাবে পুরস্কৃত হচ্ছে। আর সাধারণ মানুষকে এখনও কষ্ট করতে হচ্ছে। এ অবস্থা থেকে জাতিকে মুক্ত করতে হবে।

খবরটি পঠিত হয়েছে ১০১ বার
font
font
সর্বাধিক পঠিত
আজকের ভিউ
পুরোন সংখ্যা
Click Here
সম্পাদক - আলতামাশ কবির । ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক - খন্দকার মুনীরুজ্জামান । ব্যবস্থাপনা সম্পাদক - কাশেম হুমায়ুন ।
সম্পাদক কর্তৃক দি সংবাদ লিমিটেড -এর পক্ষে ৮৭, বিজয়নগর, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং প্রকাশিত।
কার্যালয় : ৩৬, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০। ফোন : ৯৫৬৭৫৫৭, ৯৫৫৭৩৯১। কমার্শিয়াল ম্যানেজার : ৭১৭০৭৩৮
ফ্যাক্স : ৯৫৫৮৯০০ । ই-মেইল : sangbaddesk@gmail.com
Copyright thedailysangbad © 2017 Developed By : orangebd.com.
close