logo

orangebd logo
ময়লার ভাগাড় লামা বাজার 'পবিত্র' পুকুর
প্রতিনিধি লামা (বান্দরবান)

লামা শহরের ঐতিহ্যবাহী বাজার পুকুরটির চারদিক ভরাট করে দখলে নিয়েছে কতিপয় অসাধু ব্যক্তিরা। স্থানীয়দের কাছে এক সময় যে পুকুরটি ছিল পূজনীয়; মলমূত্র ত্যাগ, বাসাবাড়ির ময়লা আবর্জনা ফেলে বর্তমানে ডাসবিনে পরিণত করা হয়েছে সেটিকে। পরিবেশের গুরুত্বপূর্ণ সহায়ক হিসেবে এর ব্যবহার না হয়ে; এ পুকুরটি এখন ম্যালেরিয়া, চিকুনগুনিয়া, ডেঙ্গু মশার আস্তানা হয়ে উঠেছে। সমাজের বিত্তবানরা গ্রামবাসীর নিরাপদ মিঠা পানির উৎস হিসেবে পুকুর বা দীঘি খনন করতেন। বর্তমানেও গ্রামীণ সমাজ ব্যবস্থায়, পুকুর কেন্দ্রিকতা বিদ্যমান। পুকুর মানুষের নিত্যদিনের উপজীব্য হিসেবে এখনো বিবেচিত হয়ে আসলেও সংশ্লিষ্টদের উদাসীনতায় লামা বাজারের প্রথম খনন করা পুকুরটি কালের নিষ্ঠুর গহ্বরে হারিয়ে যাচ্ছে।জানা যায়, ঊনিশ শতকের শুরু থেকে লামা বাজারের হরিমন্দিরের দক্ষিণ পাশের পুকুরটি পাকা অবকাঠামো সিঁড়ি নির্মাণ করে ব্যবহার করে আসছিল ব্যবসায়ীরা। মাতামুহুরী নদীর পরে বাজারবাসীদের কাছে এই পুকুরটি ছিল পুঁজনীয়। ৮০'র দশক থেকে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে বাজার সম্প্রসারণ হয়ে বাজার আবাসন বৃদ্ধি পায়। সে থেকে ক্রমেই একটি আগ্রাসী মহলের দৃষ্টি পড়ে পুকুরটির উপর। চারপাশ থেকে দখলদারদের কবলে পড়ে এর আকার অনেক ছোট হয়ে গেছে। তা ছাড়া পাড়ে বসতিস্থাপনকারীরা বাসাবাড়ির ময়লা আবর্জনা নিক্ষেপ ও পুকুরের সাথে টয়লেটের সংযোগ করে দেয়। এর ফলে লামা বাজারের প্রাচীনতম পুকুরটি বর্তমানে ডাস্টবিনে পরিণত হয়েছে। ব্যবসায়ীরা জানান, প্রায় দুশো বছর আগে লামা বাজার স্থাপন হওয়ার পরই পুকুরটি খনন করা হয়েছিল। সনাতনী ধর্মাবলম্বীদের কাছে এই পুকুরটি ছিল পূজনীয়। তারা দুঃখ করে জানান, বহুকাল থেকে সার্বজনীন; কালের স্মৃতিস্বাক্ষর বহনকারী এই পানির ভান্ডারটি এখন মালিকানা দ্বন্দ্বের শিকার হয়ে হারিয়ে যেতে বসেছে।কতিপয় অসাধু ব্যক্তিদের দখলে থাকা পুকুরটি এখন মশামাছির এক বিশাল আস্তানায় পরিণত হয়েছে। সঠিক ব্যবহার না করায় পুকুরটি পরিবেশের সহায়ক নেই আগের মতো। এ থেকে জন্মানো মশামাছি-বিভিন্ন রোগ জীবাণু ছড়াচ্ছে ঘোটা শহরব্যাপী। ব্যবসায়ীরা বলেন, বর্ষা মৌসুমে মাতামুহুরী নদী গোসল ও ধোয়াপালার জন্য বাজারবাসীদের অনুকূল থাকে না। ব্যবসায়ীদের বড় একটি অংশ নদীর পানিতে গোসল ও ধোয়াপালা করছে। তাও গত কয়েক বছর ধরে বাজার ঘাটের পাকা অবকাঠামোটি ভেঙ্গে যাওয়ায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সবাইকে। আবার অনেক আগ থেকে ব্যবসায়ীদের কেউ কেউ কেন্দ্রীয় মসজিদ ও চেয়ারম্যানপাড়া মসজিদের পুকুরও ব্যবহার করছেন।জানাযায়, পুকুরটির মালিকানা নিয়ে স্থানীয় এক ব্যবসায়ীর সাথে বাজারফান্ড প্রশাসনের বিরোধ রয়েছে। বাজার ব্যবসায়ীরা জানান, লামা বাজারে সমাজসেবার প্রথম নিদের্শন প্রাচীনতম পুকুরটি পুনঃখনন, সংস্কার করা দরকার। সাম্প্রতিক সময়ে পৌরসভা ও জেলা পরিষদের যৌথ উদ্যোগে পুকুরটি আগ্রাসীদের কবল থেকে রক্ষার প্রয়াসটিও ক্ষিণ হয়ে পড়েছে বলে বাজারবাসীরা জানান।

খবরটি পঠিত হয়েছে ১০১ বার
font
font
সর্বাধিক পঠিত
আজকের ভিউ
পুরোন সংখ্যা
Click Here
সম্পাদক - আলতামাশ কবির । ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক - খন্দকার মুনীরুজ্জামান । ব্যবস্থাপনা সম্পাদক - কাশেম হুমায়ুন ।
সম্পাদক কর্তৃক দি সংবাদ লিমিটেড -এর পক্ষে ৮৭, বিজয়নগর, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং প্রকাশিত।
কার্যালয় : ৩৬, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০। ফোন : ৯৫৬৭৫৫৭, ৯৫৫৭৩৯১। কমার্শিয়াল ম্যানেজার : ৭১৭০৭৩৮
ফ্যাক্স : ৯৫৫৮৯০০ । ই-মেইল : sangbaddesk@gmail.com
Copyright thedailysangbad © 2017 Developed By : orangebd.com.
close