logo

orangebd logo
সিএসআর নীতিমালা প্রণয়নে জাতীয় কাউন্সিল হবে
অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচি (সিএসআর) নীতিমালা প্রণয়নে শীঘ্রই একটি জাতীয় কাউন্সিল গঠন করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেন, বাংলাদেশে অনেক আগে থেকেই সিএসআর কার্যক্রম চালু রয়েছে এবং সমাজে বিভিন্ন ভাবে সিএসআর কার্যক্রম চালু আছে। এসডিজি'র লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য সরকারের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট সব স্টেকহোল্ডারদের কার্যকর অংশগ্রহণ একান্ত অপরিহার্য বলেও জানান তিনি।গতকাল ঢাকা চেম্বার অডিটরিয়ামে 'বাংলাদেশে করপোরেট প্রতিষ্ঠানসমূহে সামাজিক দায়বদ্ধতা কার্যক্রম জোরদার' শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। যৌথভাবে সেমিনারের আয়োজন করে ঢাকা চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) এবং এস আর এশিয়া বাংলাদেশ। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন ডিসিসিআই ঊর্ধ্বতন সহ-সভাপতি কামরুল ইসলাম, সহ-সভাপতি হোসেন এ সিকদার, পরিচালক মো. আলাউদ্দিন মালিক, প্রাক্তন সহ-সভাপতি এম আবু হোরায়রাহ, প্রাক্তন পরিচালক এ কে ডি খায়ের মোহাম্মদ খান প্রমুখ। সেমিনারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এ এস এম আমানউল্লাহ মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে একটি সিএসআর নীতিমালা প্রণয়নের লক্ষ্যে অর্থমন্ত্রণালয় ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, সংস্থা, বাণিজ্যিক সংগঠন ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে সুপারিশমালা গ্রহণ করেছে। এ সুপারিশের আলোকে সিএসআর নীতিমালা প্রণয়নে শিগগির জাতীয় কাউন্সিল গঠন করা হবে।সেমিনারে ডিসিসিআই সভাপতি আবুল কাসেম খান বলেন, বাংলাদেশে সামাজিক দায়বদ্ধতার কার্যক্রম দীর্ঘদিন যাবত চালু থাকলেও এখনও তা প্রাতিষ্ঠানিক রূপ লাভ করেনি। এসডিজিতে উল্লেখিত দারিদ্র বিমোচন, ক্ষুধা নিবারণ, কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ উন্নয়ন এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির ধারাকে বেগবান করাসহ অন্যান্য লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে সিএসআর কার্যক্রম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তিনি বলেন, যেকোনো প্রতিষ্ঠানের সুনাম বৃদ্ধিতে সিএসআর কার্যক্রম একান্ত আবশ্যক। যেকোনো প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনার পাশাপাশি কর্মীদের দক্ষতা বাড়ানোর বিষয়ে সিএসআর অত্যন্ত কার্যকর। এস আর এশিয়া বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর সুমাইয়া রশিদ বলেন, সিএসআর নীতিমালা প্রণয়ন হলে দেশের করপোরেট সংস্থাসমূহে সিএসআর কার্যক্রম আরও সক্রিয়ভাবে কার্যকর করা যাবে। এশিয়া অঞ্চলের বিভিন্ন দেশে ইতোমধ্যে সিএসআর নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। যা একটি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ লাভ করেছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে সিএসআর কার্যক্রম এখনও প্রতিষ্ঠানিক পর্যায়ে পেঁৗছায়নি। তবে সিএসআর কার্যক্রমের টেকসই উন্নয়ন ও তার প্রভাব পর্যালোচনার জন্য আমাদের সবাইকে আরও মনোযোগী হতে হবে। সেমিনারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এ এস এম আমানউল্লাহ মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। মূল প্রবন্ধে তিনি বলেন, দেশের করপোরট সংস্থাসমূহ সিএসআর কার্যক্রমের পরিধি বৃদ্ধি করলে এর প্রভাব স্বাস্থ্য, শিক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন এবং জ্বালানি খাতের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

খবরটি পঠিত হয়েছে ১০১ বার
font
font
সর্বাধিক পঠিত
আজকের ভিউ
পুরোন সংখ্যা
Click Here
সম্পাদক - আলতামাশ কবির । ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক - খন্দকার মুনীরুজ্জামান । ব্যবস্থাপনা সম্পাদক - কাশেম হুমায়ুন ।
সম্পাদক কর্তৃক দি সংবাদ লিমিটেড -এর পক্ষে ৮৭, বিজয়নগর, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং প্রকাশিত।
কার্যালয় : ৩৬, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০। ফোন : ৯৫৬৭৫৫৭, ৯৫৫৭৩৯১। কমার্শিয়াল ম্যানেজার : ৭১৭০৭৩৮
ফ্যাক্স : ৯৫৫৮৯০০ । ই-মেইল : sangbaddesk@gmail.com
Copyright thedailysangbad © 2017 Developed By : orangebd.com.
close