logo

orangebd logo
সরবরাহ চাপে দরপতনে চীনাবাদামের দাম
অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

টানা দু-তিন মাস স্থির থাকার পর নিম্নমুখী হয়ে উঠেছে চীনাবাদামের বাজার। দেশে ভোগ্যপণ্যের বৃহত্তম পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে সপ্তাহের ব্যবধানে চীনাবাদামের দাম কমেছে মণে (৩৭ দশমিক ৩২ কেজি) ৯০০ টাকা। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, চাহিদা স্থিতিশীল থাকলেও মূলত বাড়তি সরবরাহের চাপে দরপতন অব্যাহত রয়েছে পণ্যটির।

চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জ ও চাক্তাই এলাকার আড়ত ও দোকানগুলোয় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত রোববার বাজারে প্রতি মণ খোসা ছাড়া চীনাবাদাম বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ৪২৫ থেকে ২ হাজার ৪৩০ টাকায়। এক সপ্তাহ আগেও বাজারে একই মানের চীনাবাদাম বিক্রি হয়েছিল ৩ হাজার ৩৫৮ থেকে ৩ হাজার ২৮৪ টাকায়। সে হিসাবে এক সপ্তাহের ব্যবধানে পণ্যটির দাম কমেছে মণে ৮৫৮-৯৩৩ টাকা।

এ বিষয়ে খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীরা জানান, দু-তিন মাস স্থিতিশীল থাকার পর হঠাৎ সরবরাহ চাপ বেড়ে যাওয়ায় নিম্নমুখী প্রবণতায় রয়েছে চীনাবাদামের বাজার। আর এইচ ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী বাদাম ব্যবসায়ী রবিউল হাকিম জানান, টানা দু-তিন মাস পণ্যটির বাজার স্থির ছিল। ওই সময় বাজারে প্রতিকেজি খোসা ছাড়া চীনাবাদাম বিক্রি হয় ৯০ টাকার ওপরে। এরপর দিন দশেক ধরে পাইকারি বাজারে পণ্যটির দাম নিম্নমুখী হতে শুরু করে, যা এখনো অব্যাহত রয়েছে। প্রতিদিনই পণ্যটির দাম একটু একটু করে কমতে থাকে। গত বৃহস্পতিবার পাইকারি বাজারে খোসা ছাড়া চীনাবাদাম প্রতি কেজি ৬৫-৬৬ টাকায় বিক্রি হয়। এর আগে পণ্যটি প্রতি কেজি ৬৯-৭০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল। চীনাবাদামের সরবরাহ মৌসুম শুরু হতে যাচ্ছে কিছুদিনের মধ্যেই। এ অবস্থায় কৃষক ও উৎপাদনকারীরা বাজারে নিজ নিজ মজুদের চীনাবাদাম ছেড়ে দিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। খাতুনগঞ্জের আরেক ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেন জানান, কয়েক দিন পরই বাদামের মৌসুম শুরু হবে। দেশের চরাঞ্চল থেকে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই নতুন মৌসুমের বাদাম বাজারে আসা শুরু করবে। তাই মোকামের মালিকরা গত মৌসুমের মজুদ থাকা বাদাম বাজারে ছেড়ে দিতে শুরু করেছেন। এ কারণে পাইকারি বাজারে পণ্যটির দাম কমতে শুরু করেছে। মূলত চরাঞ্চলে দাম কম থাকায় বাজারে পণ্যটির সরবরাহ বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু সেই পরিমাণ বিক্রি না বাড়ায় বাড়তি সরবরাহের ফলে ব্যবসায়ীদের কম দামে চীনাবাদাম বিক্রি করতে হচ্ছে।

নতুন চাক্তাই এলাকার নাজিম ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন জানান, চরাঞ্চলের মোকামগুলো থেকে এরইমধ্যে নতুন মৌসুমের কিছু বাদাম বাজারে আসতে শুরু করেছে। তবে বর্তমানে যেসব বাদাম বাজারে আসছে, সেগুলোর মান খুব একটা ভালো নয়। মূলত বাড়তি দর পেতে অনেক কৃষক আগাম ফসল তুলেছে। আগাম ঘরে তোলা এসব অপরিপক্ব বাদামই এখন বাজারে আসতে শুরু করেছে, ভালোভাবে রোদে শুকানো হয়নি। এমনকি কাঁচা থাকায় এগুলোর মিলিং করতে পানি ব্যবহার করা হয়েছে। ফলে এসব বাদাম বেশি দিন সংরক্ষণ করা যাবে না। দ্রুত এসব অপরিপক্ব পণ্যের বিক্রি নিশ্চিত করতে ব্যবসায়ীরা দাম কমিয়ে দিয়েছেন। এ কারণে নিম্নমানের এসব পণ্যের সরবরাহ বাজারে পণ্যটির দরপতনে ভূমিকা রেখেছে। চট্টগ্রাম, বরিশাল, ভোলা, লক্ষ্মীপুর, হাতিয়া, নোয়াখালী, পঞ্চগড়সহ দেশের বিভিন্ন চরাঞ্চল থেকে খাতুনগঞ্জের বাজারে চীনাবাদাম সরবরাহ করা হয়। প্রতিবছর সারা দেশের ১০টি অঞ্চলে প্রায় ৮৫-৮৭ হাজার হেক্টর জমিতে মোট ১ লাখ ৩০ হাজার থেকে ১ লাখ ৪০ হাজার টন চীনাবাদাম উৎপাদন হয়। এরমধ্যে চট্টগ্রাম ও বরিশাল অঞ্চলে বাদামের চাষ সবচেয়ে বেশি হয়। পাইকারি বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, প্রতি বছর শীত মৌসুম ও জুন-জুলাইয়ের দিকে দুই দফা দেশের উৎপাদনকারী অঞ্চলগুলো থেকে বাজারে চীনাবাদাম সরবরাহ করা হয়। সরবরাহকালীন বাজারে পণ্যটির দামও অনেক কম থাকে। আগস্ট থেকে পণ্যটির সরবরাহের গতি কমে আসে। মূলত এ সময় থেকেই বাড়তে শুরু করে চীনাবাদামের দাম।

খবরটি পঠিত হয়েছে ১০১ বার
font
font
সর্বাধিক পঠিত
আজকের ভিউ
পুরোন সংখ্যা
Click Here
সম্পাদক - আলতামাশ কবির । ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক - খন্দকার মুনীরুজ্জামান । ব্যবস্থাপনা সম্পাদক - কাশেম হুমায়ুন ।
সম্পাদক কর্তৃক দি সংবাদ লিমিটেড -এর পক্ষে ৮৭, বিজয়নগর, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং প্রকাশিত।
কার্যালয় : ৩৬, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০। ফোন : ৯৫৬৭৫৫৭, ৯৫৫৭৩৯১। কমার্শিয়াল ম্যানেজার : ৭১৭০৭৩৮
ফ্যাক্স : ৯৫৫৮৯০০ । ই-মেইল : sangbaddesk@gmail.com
Copyright thedailysangbad © 2017 Developed By : orangebd.com.
close