logo

orangebd logo
ভেনিজুয়েলায় গণভোট
গুলিতে নারী নিহত
সংবাদ ডেস্ক

ভেনিজুয়েলায় বিরোধী দলগুলোর পক্ষ থেকে আয়োজিত এক অনানুষ্ঠানিক গণভোটে বন্দুকধারীদের হামলায় এক নারী নিহত হয়েছেন। গত রোববার রাজধানী কারাকাসের ক্রাতিয়া এলাকার একটি বুথের বাইরে ভোটের লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় তিনি গুলিবিদ্ধ হন। এছাড়াও এ ঘটনায় আরও তিনজন আহত হয়েছেন। দেশটিতে সংবিধান সংশোধনী ইস্যুতে বিরোধী দলগুলো এ গণভোটের আয়োজন করে। বিবিসি।

গত রোববার অনুষ্ঠিত গণভোটে অংশ নেয় ৭০ লাখেরও বেশি ভেনিজুয়েলান। সাবেক প্রেসিডেন্ট হুগো শ্যাভেজের মৃত্যুর পর ক্ষমতায় আসা প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো দ্রুত জনপ্রিয়তা হারাতে থাকেন। মাদুরো জুলাই মাসের শেষ দিকে একটি জাতীয় সাংবিধানিক পরিষদের জন্য প্রতিনিধি নির্বাচনের পরিকল্পনা করেছেন। বিরোধিরা এ প্রতিনিধি নির্বাচনের বিরোধিতা করে গণভোট আয়োজন করেছে। এতে প্রশ্ন রাখা হয়েছে, ভোটাররা আসলেই একটি নতুন সংবিধান চান কিনা। আগামী ২০১৮-র আগেই নতুন নির্বাচনের দাবিতে বিরোধীরা এ গণভোটের আয়োজন করে। বিভিন্ন এলাকার নাট্যমঞ্চ, খেলার মাঠ ও চৌরাস্তার মাথায় বসেছিল বুথ। বুথগুলোতে ভোটারদের দীর্ঘ সারি দেথা গেছে বলে বিবিসির প্রতিনিধি জানিয়েছেন। এ গণভোট পর্যবেক্ষণ করতে শনিবার বেশ কয়েকজন সাবেক লাতিন আমেরিকান নেতা রাজধানী কারাকাসে এসেছেন। এ নির্বাচন অবশ্য পুরোপুরিই প্রতীকী। বিরোধী দল বলছে, এটার মাধ্যমে তারা জনগণের মতামত নিচ্ছে যে, সরকারকে আসলেই সংবিধান পরিবর্তনের উদ্যোগ নিতে দেয়া যায় কিনা।

এদিকে ৬১ বছর বয়সী নিহত জিওমারা সোলেদাদ স্কট নার্সের কাজ করতেন বলে জানা গেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মোটরবাইকে আসা বন্দুকধারীরা ভোট দেয়ার অপেক্ষায় থাকা লোকজনের ওপর গুলি চালালে চারজন আহত হন। এ সময় আহত জিওমারাকে হাসপাতালে নেয়ার পরপরই তিনি মারা যান। এদিকে বিরোধীরা এ হামলার জন্য 'আধাসামরিক' বাহিনীর সদস্যদের দায়ী করেছেন। ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, গুলির পরপরই আতঙ্কিত লোকজনকে দৌড়ে কাছাকাছি চার্চের দিকে পালিয়ে যেতে দেখা গেছে। অপরদিকে তদন্ত কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তারা এ হামলার ঘটনা খতিয়ে দেখছেন। ভেনিজুয়েলার বাইরে শতাধিক দেশে ছড়িয়ে থাকা প্রবাসীদের জন্যও ভোটের আয়োজন করা হয়েছে বলে দাবি বিরোধী দলগুলোর। এদিকে দেশটির প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো এ গণভোটকে 'অর্থহীন' হিসেবে অ্যাখ্যা দিয়েছেন।

আগামী ৩০ জুলাই দেশটিতে আনুষ্ঠানিক এক গণভোট হওয়ার কথা। মাদুরো সরকার একটি নতুন সংবিধান চাইছে। এ অ্যাসেম্বলি সংবিধান সংশোধন ও রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান বিলুপ্তির এখতিয়ার রাখবে। মাদুরোর মতে, দেশকে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংকট থেকে টেনে তোলার এটাই একমাত্র উপায়। তবে নতুন এ সাংবিধানিক অ্যাসেম্বলি মাদুরোর 'একনায়কতন্ত্র'কে আরও দীর্ঘায়িত করবে বলে সমালোচকদের অভিমত।

খবরটি পঠিত হয়েছে ১০১ বার
font
font
সর্বাধিক পঠিত
আজকের ভিউ
পুরোন সংখ্যা
Click Here
সম্পাদক - আলতামাশ কবির । ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক - খন্দকার মুনীরুজ্জামান । ব্যবস্থাপনা সম্পাদক - কাশেম হুমায়ুন ।
সম্পাদক কর্তৃক দি সংবাদ লিমিটেড -এর পক্ষে ৮৭, বিজয়নগর, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং প্রকাশিত।
কার্যালয় : ৩৬, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০। ফোন : ৯৫৬৭৫৫৭, ৯৫৫৭৩৯১। কমার্শিয়াল ম্যানেজার : ৭১৭০৭৩৮
ফ্যাক্স : ৯৫৫৮৯০০ । ই-মেইল : sangbaddesk@gmail.com
Copyright thedailysangbad © 2017 Developed By : orangebd.com.
close