logo

orangebd logo
রিয়াদে তুর্কি সেনাঘাঁটি স্থাপনের প্রস্তাব : সৌদির 'না'
সংবাদ ডেস্ক

তুরস্ককে রিয়াদে সেনাঘাঁটি স্থাপনের প্রস্তাবে অসম্মতি জানিয়েছে সৌদি আরব। গত শনিবার সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থায় বলা হয়, 'নিজেদের এলাকায় কোনও তুর্কি ঘাঁটি মেনে নেবে না সৌদি। প্রতিবেশী কাতারে যে রকম তুর্কি সেনাঘাঁটি রয়েছে, ঠিক একইভাবে আরেকটি সেনাঘাঁটি সৌদিতে স্থাপনের অনুমতি দেয়া হবে না। কারণ সৌদির সেনাসদস্য ও শক্তি উভয়ই যথেষ্ট ভালো পর্যায়ে রয়েছে।'

গত ৫ জুন থেকে কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন এবং মিসর। সম্পর্ক ছিন্ন করা দেশগুলো বলছে, সন্ত্রাসী ও আঞ্চলিক বিদ্রোহী পক্ষ ইরানকে মদদ দিচ্ছে কাতার। আর এ পরিস্থিতিতে আরব দেশগুলোর কূটনৈতিক সংকট সমাধানে তুরস্ক নেতৃস্থানীয় মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করছে। এদিকে সৌদি আরবের এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বলা হয়, 'কিছুতেই সৌদি অঞ্চলে সেনাঘাঁটি স্থাপনের অনুমতি দেয়া যায় না তুরস্ককে। সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা, অঞ্চলের স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা রক্ষায় তুরস্কের ইনকিরলিক ঘাঁটিসহ বিদেশের বিভিন্ন স্থানে সৌদি সেনাবাহিনী কাজ করে যাচ্ছে।

এদিকে, পর্তুগিজ টেলিভিশন আরটিপিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেন, '২০১৪ সালে কাতারে তুর্কি সেনাঘাঁটি স্থাপনের কাজ শুরু করার ক'দিন পরই সৌদি আরবকে সেনাঘাঁটি স্থাপন করার প্রস্তাব দিয়েছিলাম। একই প্রস্তাব বাদশাহ সালমানকেও দিয়ে বলেছিলাম, বিষয়টি সঠিক হলে আমরা সৌদি আরবে সেনাঘাঁটি স্থাপন করতে পারি। তারা প্রস্তাবটি দেখবেন বলে জানালেও এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কার্যকরী কোনও ফল পাওয়া যায়নি।' তুর্কি প্রেসিডেন্টের এ সাক্ষাৎকারের একদিন পরই সৌদি স্পষ্ট করে জানিয়ে দেয়, তুরস্ককে তারা সেনাঘাঁটি স্থাপনের অনুমতি দেবে না। গত সপ্তাহে কাতারের সেনাঘাঁটিতে সেনা মোতায়েনের অনুমতি পাস হয় তুরস্কের পার্লামেন্টে।

কাতার পৌঁছাল তুর্কি সেনারা

এদিকে কাতারের সঙ্গে যৌথ সামরিক মহড়ায় অংশ নিতে তুর্কি সেনাবাহিনীর প্রথম সেনা দলটি দোহায় পেঁৗছেছে গত রোববার । এদিন তারিক বিন জিয়াদ সামরিক ঘাঁটিতে প্রথম মহড়ায় অংশ নেয় তারা। কাতারের প্রতিরক্ষা মন্ত্রাণালয় এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

দীর্ঘদিন ধরে পরিকল্পনা করা হচ্ছিল, দু'দেশের সামরিক শক্তি সক্ষমতা বাড়ানোর উদ্দেশ্যে এ ধরনের মহড়ার আয়োজন করা হবে। এ মহড়াকে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা রক্ষা ও জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রস্তুতি হিসেবেও বিবেচনা করা হচ্ছে। জঙ্গি সংগঠনগুলোকে সমর্থন, অর্থায়ন এবং ইরানকে সমর্থনের অভিযোগে চলতি মাসের শুরুর দিকে সৌদি আরবের নেতৃত্বে নয়টি দেশ কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে। তবে কাতার বরাবরই সে অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে।

চলতি মাসের শুরুর দিকে তুরস্কের পার্লামেন্ট কাতারে নিজেদের সামরিক ঘাঁটিতে সেনা মোতায়েনের বিষয়টি অনুমোদন করে। অবশ্য ২০১৬ সালেই কাতারের সঙ্গে এ বিষয়ে চুক্তি হয়েছিল তুরস্কের। চলতি মাসের ৫ তারিখে সৌদি আরবের নেতৃত্বের দেশগুলো কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন শুরু করলে সর্বপ্রথম তুরস্কই দোহার পাশে থাকার ঘোষণা দেয়। আঙ্কারা বরাবরই কাতারের সংকট সমাধানের জন্য চেষ্টা করে আসছে। পার্স টুডে, আল-জাজিরা।

খবরটি পঠিত হয়েছে ১০১ বার
font
font
সর্বাধিক পঠিত
আজকের ভিউ
পুরোন সংখ্যা
Click Here
সম্পাদক - আলতামাশ কবির । ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক - খন্দকার মুনীরুজ্জামান । ব্যবস্থাপনা সম্পাদক - কাশেম হুমায়ুন ।
সম্পাদক কর্তৃক দি সংবাদ লিমিটেড -এর পক্ষে ৮৭, বিজয়নগর, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং প্রকাশিত।
কার্যালয় : ৩৬, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০। ফোন : ৯৫৬৭৫৫৭, ৯৫৫৭৩৯১। কমার্শিয়াল ম্যানেজার : ৭১৭০৭৩৮
ফ্যাক্স : ৯৫৫৮৯০০ । ই-মেইল : sangbaddesk@gmail.com
Copyright thedailysangbad © 2017 Developed By : orangebd.com.
close