logo

orangebd logo
কুলভূষণের মৃত্যুদন্ড স্থগিত
পাকিস্তানি গণমাধ্যমে নওয়াজ সরকারের তীব্র সমালোচনা
সংবাদ ডেস্ক

পাকিস্তানের অভ্যন্তরে-বাইরে চাপের মুখে নওয়াজ শরিফ সরকার। একদিকে আন্তর্জাতিক আদালতের রায়ে ভারতীয় নৌবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা কুলভূষণ যাদবের মৃত্যুদন্ডে স্থগিতাদেশ জারি হয়েছে। আর অন্যদিকে এর জেরে ঝড় উঠেছে দেশের অভ্যন্তরে। পাকিস্তানি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথা সরকারের ভূমিকা নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যমে। এ রায় প্রসঙ্গে নওয়াজ সরকার বলছে, আন্তর্জাতিক আদালতের রায় মানতে পাকিস্তান বাধ্য নয়, কারণ জাতীয় নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে রায় দেয়ার অধিকার আন্তর্জাতিক আদালতের নেই। এর জবাবে পাল্টা প্রশ্ন তুলেছে পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম, কুলভূষণ মামলায় হস্তক্ষেপ করার অধিকারই যখন আন্তর্জাতিক আদালতের নেই, তাহলে সে মামলায় প্রতিনিধি পাঠাল কেন, পাকিস্তান?

পাকিস্তানের প্রায় সব সংবাদমাধ্যমেই দেশটির সরকারের সমালোচনা শুরু হয়েছে ইতোমধ্যেই। ভারত কুলভূষণ যাদবের মামলাটিকে আন্তর্জাতিক আদালতে টেনে নিয়ে যাওয়ার পর পাকিস্তান এ সংক্রান্ত যতগুলো পদক্ষেপ নিয়েছে, সবই ভুল ছিল বলে দাবি পাকিস্তানি বিশেষজ্ঞদের। আন্তর্জাতিক আদালতে পাকিস্তানের প্রতিনিধিরা মামলাটিকে জোরালোভাবে উপস্থাপন করতে পারেননি বলে দেশটির সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে।

দেশটির সংবাদপত্র 'দ ডন'-এর ওয়েবসাইটকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে অবসরপ্রাপ্ত পাকিস্তানি জজ শইক উসমানি জানিয়েছেন, 'আন্তর্জাতিক আদালতে হাজির হয়েই পাকিস্তান ভুল করেছে, সেখানে যাওয়াই উচিত হয়নি তাদের।' উসমানির মন্তব্য, পাকিস্তান নিজের পায়েই কুড়াল মেরেছে।

এদিকে লন্ডন প্রবাসী পাকিস্তানি আইনজীবী রশিদ আসলাম জানিয়েছেন, পাকিস্তানের প্রতিনিধিরা আন্তর্জাতিক আদালতে জোরালোভাবে যুক্তি তর্ক উপস্থাপন করতে পারেননি। দেশটির সংবাদমাধ্যমকে তিনি জানিয়েছেন, পাকিস্তানকে নিজেদের বক্তব্য জানানোর জন্য যে ৯০ মিনিট সময় দেয়া হয়েছিল, তা পাকিস্তান কাজে লাগাতে পারেনি। রশিদ আসলামের ভাষায়, 'পাকিস্তানকে প্রশ্ন করার জন্য যে ৯০ মিনিট সময় দেয়া হয়েছিল , তার মধ্যে ৪০ মিনিটই নষ্ট করেছে আইনজীবীরা। আমি অবাক হয়েছি এই ভেবে যে, এত অল্পেই কেন আমরা আমাদের প্রশ্ন শেষ করে দিলাম।'

অপরদিকে কুলভূষণ ইস্যুতে পাকিস্তানের প্রধান বিরোধী দল পিপিপি-র নেত্রী শেরি রহমানও দেশটির সরকারের সমালোচনায় সরব হয়েছেন। পাকিস্তানের প্রতিনিধিরা আন্তর্জাতিক আদালতে নিজেদের অবস্থান ঠিক মতো তুলে ধরতেই পারেননি বলে শেরি রহমানের দাবি। তার মতে, 'আমরা শুধু আদালতের এক্তিয়ার সংক্রান্ত বিষয়েই প্রশ্ন সীমাবদ্ধ রেখেছিলাম এবং প্রমাণিত হল যে সেই প্রশ্ন দুর্বল ছিল।' কুলভূষণ যাদবের 'চরবৃত্তি' সংক্রান্ত তথ্য আরও বেশি করে আন্তর্জাতিক আদালতের সামনে তুলে ধরা উচিত ছিল বলে মত পিপিপি নেত্রীর।

তবে নিজেদের দুর্বলতা ঢাকতে ইসলামাবাদ বলছে, আন্তর্জাতিক আদালতের এ নির্দেশ মানতে তারা বাধ্য নয়। কুলভূষণ যাদবের মামলা পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয় এবং এ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার এক্তিয়ার আন্তর্জাতিক আদালতের নেই। কুলভূষণ মামলায় হস্তক্ষেপের কোনও অধিকার আন্তর্জাতিক আদালতের নেই, পাকিস্তান সরকারের এমন বক্তব্যের জবাবে দেশটির অভ্যন্তরেই প্রশ্ন উঠেছে, তা হলে এ মামলায় পাকিস্তান অংশ নিল কেন?

খবরটি পঠিত হয়েছে ১০১ বার
font
font
সর্বাধিক পঠিত
আজকের ভিউ
পুরোন সংখ্যা
Click Here
সম্পাদক - আলতামাশ কবির । ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক - খন্দকার মুনীরুজ্জামান । ব্যবস্থাপনা সম্পাদক - কাশেম হুমায়ুন ।
সম্পাদক কর্তৃক দি সংবাদ লিমিটেড -এর পক্ষে ৮৭, বিজয়নগর, ঢাকা থেকে মুদ্রিত এবং প্রকাশিত।
কার্যালয় : ৩৬, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০। ফোন : ৯৫৬৭৫৫৭, ৯৫৫৭৩৯১। কমার্শিয়াল ম্যানেজার : ৭১৭০৭৩৮
ফ্যাক্স : ৯৫৫৮৯০০ । ই-মেইল : sangbaddesk@gmail.com
Copyright thedailysangbad © 2017 Developed By : orangebd.com.
close